home only

.
কথিত যুদ্ধাপরাধের বিচার: বিশেষজ্ঞরা কি বলেন?

পরিধানযোগ্য কম্পিউটার ‘গুগল গ্লাস’

File:Google Glass Explorer Edition.jpeg২০১১ সালের এপ্রিলে বিস্ময়কর একটি চশমার ধারণা দিয়ে বিশ্বে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিল গুগল। এখন পর্যন্ত ‘গুগল গ্লাস’ নামে পরিচিত এই বস্তুটি আসলে মোবাইল কম্পিউটার আর চশমার মিলিত এক রূপ।
এই চশমাটি দিয়ে ছবি তোলা, ইন্টারনেট ব্যবহার, ভিডিও রেকর্ড করা, এসএমএস পাঠানো—এমন সব কাজ করা যায়, অর্থাত্ হালের স্মার্টফোন দিয়ে যা করা সম্ভব, তা-ই করা যায় চোখে পরা এই চশমাটি দিয়ে।
গুগলের এই চশমাটি এখন ব্যবহার করছেন নির্বাচিত কিছু ব্যক্তি, যার মধ্যে রয়েছেন সফটওয়্যার ডেভেলপার, প্রোগ্রামার ইত্যাদি। তাদের দেয়া বিভিন্ন পরামর্শের ভিত্তিতে তৈরি করা হবে সাধারণ ব্যবহারকারীদের জন্য চশমা। নির্বাচিত এই ব্যক্তিরা দেড় হাজার ডলার দিয়ে চশমাটি কিনেছেন।
রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ প্রচারণার উদ্দেশ্যে আকাশ থেকে ছবি তুলেছে। আছে বহিরাগতদের তোলা কিছু ছবিও। এসব বিচ্ছিন্ন ছবি ছাড়া অন্য কোনো উত্স নেই। ফলে সামগ্রিক চিত্র পাওয়া কঠিন। গুগল এসব খণ্ডচিত্র জুড়ে এক সার্বিক চিত্র দিতে চাইছে।
গুগলের নির্বাহী চেয়ারম্যান এরিক স্মিডট বলেছেন, কিছুদিনের মধ্যেই চশমাটি বাজারে আসতে পারে। আর দামটা স্মার্টফোনের চেয়ে বেশিই হবে বলে আগেই জানিয়েছিল গুগল।
গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে গুগলের একটি সম্মেলনে এই বিস্ময়কর চশমা নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে। প্রোগ্রামারদের এই সম্মেলনে অনেকেই চশমা পরে উপস্থিত হয়েছিলেন। সেখানেই ফেসবুক আর টুইটার গুগল গ্লাসের জন্য তৈরি অ্যাপের উদ্বোধনী ঘোষণা দেয়। এর ফলে ব্যবহারকারীরা চশমা দিয়ে ছবি তুলে সঙ্গে সঙ্গে সেটা ফেসুবকে দিয়ে দিতে পারবেন, তেমনি সেটা পোস্ট করা যাবে টুইটারেও।

কিছু বিষয়ে আপত্তি
গুগল গ্লাস এখনও সাধারণের কাছে না এলেও আইন প্রণেতা থেকে শুরু করে অনেকেই এর কিছু বিষয় নিয়ে আপত্তি তুলেছেন। যেমন ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধা থাকায় যত্রতত্র এর ব্যবহার ঠিক হবে কিনা, সেটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। যেমন গুগলের সম্মেলনেই অনেককে এই চশমা পরে টয়লেটে যেতে দেখা গেছে। যদিও তারা বলছেন, ভুল করেই তারা ভিডিও ক্ষমতাসম্পন্ন এই চশমা পরে টয়লেটে চলে গিয়েছিলেন, তবুও সেটা ঠিক হয়নি বলেই মনে করছেন অনেকে।
এ কারণে যুক্তরাষ্ট্রে অনেক ক্যাসিনো ও বারে গুগল গ্লাস নিয়ে ঢোকাটা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

গুগলের বক্তব্য
গুগল কর্তৃপক্ষের দাবি, যেহেতু কম্পিউটারের ক্ষমতাসম্পন্ন চশমার ব্যবহার এখনও নতুন পর্যায়ে রয়েছে, তাই টুকটাক ভুল হতে পারে। যেমনটা হয়েছিল মোবাইল ফোন আসার সময়। কিন্তু যখন মোবাইলের ব্যবহার বেড়ে গেল তখন ব্যবহারকারীরা নিজে থেকেই কিছু নিয়ম মেনে চলা শুরু করে। যেমন বাসে থাকার সময় মোবাইলে জোরে কথা না বলা, বৈঠকে থাকার সময় রিংটোন বন্ধ করে রাখা ইত্যাদি। গুগল গ্লাসের ব্যবহারও যখন বাড়বে, তখনও মানুষ নিজের মতো করে নিয়ম বানিয়ে নেবে বলেই মনে করছে গুগল কর্তৃপক্ষ।
বিজ্ঞান ও কম্পিউটার

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন